তিন দিন ধরে হাসপাতালের সামনে ছেলের খোঁজে কাঁদছেন বাবা

মো: আক্তার পেশায় একজন ড্রাইভার। তিনি বিএম ডিপোর ড্রাইভার ছিলেন। চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলায় সালিয়াপাড়া গ্রামের বাসিন্দা। চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিএম

কনটেইনার ডিপোতে আগুন লাগার পর থেকে আক্তার নিখোঁজ। এদিকে ছেলে নিখোঁজ থাকায় পিতা নুরুল আমিন (৭৬) গত ৩ দিন ধরে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ

হাসপাতালের সামনে কাঁদছেন।ছেলেকে খুঁজে পেতে কেউ সাহায্য করছে না বলেও আক্ষেপ করেন তিনি। এই প্রতিবেদককে তিনি কাঁদতে কাঁদতে আকুতি করে বলেন, ঘটনার পর থেকে গত তিন দিন ধরে ছেলের খোঁজ পাচ্ছি না। আমার ছেলেটাকে একটু খুঁজে দেন।চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মেডিকেল অফিসার ডা: মমিন

উল্লাহ ভূঁইয়া জানান, হাসপাতালে ১৩টি লাশ শনাক্তের জন্য ডিএনএ টেস্টে পাঠানো হয়েছে। ডিএনএ টেস্ট আসতে কিছুদিন সময় লাগবে। রিপোর্ট আসার পর জানা যাবে।এর আগে শনিবার (৪ জুন) রাত সাড়ে ৯টার দিকে চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিএম কনটেইনার ডিপোতে আগুন লাগে। আগুন লাগার পর রাসায়নিকের কনটেইনারে একের পর

এক বিকট শব্দে বিস্ফোরণ ঘটতে থাকলে বহু দূর পর্যন্ত কেঁপে ওঠে। অগ্নিকাণ্ড ও ভয়াবহ বিস্ফোরণে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪৯ জন হয়েছে। তবে জেলা প্রশাসনের তথ্য মতে মৃতের সংখ্যা ৪১। দগ্ধ ও আহত ১৬৩ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। রাতেই শনাক্ত হওয়া নিহতদের জেলা প্রশাসনের সহায়তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!